বাংলা সিরিয়াল

“সিধাই এটা করতে পারলো না পরশু? শুধু লেপ্টে যাওয়া সিঁদুর দেখিয়েই কাজ শেষ?” – আজকের এপিসোডে নিপা রুদ্রদার গালে চুমু দেবে এই দেখেই ক্ষেপে গেলেন মিঠাই ভক্তরা

জি বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক হল “মিঠাই”। তবে এই ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা কমে গিয়েছে বেশ কিছু অংশে। সেটা টিআরপি রেটিং দেখলেই বেশ স্পষ্ট। কিন্তু অন্যদিকে মিঠাইয়ের যে একটা বড়সড় ফ্যানবেস রয়েছে সেটাও আমরা সকলেই জানি। আর সেটার প্রমাণ পাওয়া যায় সোশ্যাল মিডিয়াতেই। ধারাবাহিকের কোন জিনিসটা মানুষের ভালো লাগছে আর কোনটা ভালো লাগছে না সে সবকিছু নিয়ে অহরহ সোশ্যাল মিডিয়াতে চলতে থাকে তুমুল কথাবার্তা।

ঠিক যেমন হালুমের ট্র্যাক নিয়ে হয়েছিল। হালুমের আসল পরিচয় কি? তার মা-বাবা কে এসব খুঁজতে গিয়ে মিঠাই আর সিডের নিজস্ব সময় দেখানোই হতো না পর্দায়। সেই মোমেন্ট গুলো হারিয়ে যাওয়ায় একেবারেই খুশি হতে পারেননি দর্শক। ওই একটা ট্র্যাক পুরো দুজনের কোয়ালিটি টাইম মানুষের কাছ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো।

যদিও এবার শুরু হয়েছে অন্য একটি ট্র্যাক। যেখানে দেখা যাচ্ছে শুধু ভক্তরা নয় এবার মোদক পরিবারের সকলেই চাইছে মিঠাই আর সিড এবার তাদের একটি সুখবর দিক। তবে এবার সেই সুখবর দেওয়ার চক্করে যেসব সিন দেখানো হচ্ছে তাতেও বিরক্ত হচ্ছেন দর্শক। আসলে ধারাবাহিক কোনো রকম কূটকচালি না থাকায় মিঠাই আর সিডের সাথে সাথে প্রাধান্য পেয়েছে পার্শ্ব চরিত্রটাও। কিন্তু অন্যান্য চরিত্রদের জীবনের রোমান্স এভাবে দেখানো হয়েছে মিঠাই আর সিডের ক্ষেত্রে সেটা হচ্ছে না। এতে বেশ তিতিবিরক্ত হয়ে উঠেছেন দর্শক।

ইতিমধ্যে জানা গিয়েছে আজকের এপিসোডে কি দেখা যাবে। আর জানার সঙ্গে সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। আসলে আজকের এপিসোডের একটি ক্লিপে দেখা গিয়েছে মোদক পরিবারের ছোট মেয়ে অর্থাৎ নিপা তার স্বামী রুদ্রদাকে গালে চুমু দেবে। আর এটা দেখে একেবারে ক্ষেপে গেলেন মিঠাই ভক্তরা। এখানে তারা যে দাবী করছেন সেটা একেবারেই অন্য।

তারা বলছেন মিঠাই আর সিডের রোমান্টিক সিনে কি এটা দেখান না যেত না? এইরকম একটা সিন দেখানো নিয়ে প্রশ্ন ওঠে যে পরিবারের সাথে বসে কি করে দেখা যায় এই সিন তাহলে নিপা রুদ্র কিভাবে এরকম একটি সিন করল। এবার বলা হবে এই সিনকে নিপার ছেলেমানুষ হিসেবে দেখানো হয়েছে। তাহলে ধারাবাহিককে তো মিঠাই নিপার থেকেও ছোট। তবে তার বেলায় কেন এসব ছেলে মানুষই নেই। আসলে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ব্যক্তিগত জীবনের সমস্যা, উড়তি সমস্যা সৃষ্টি করছে ধারাবাহিকের মধ্যেও। যার ফলে প্রভাব পড়ছে গল্পের প্রেজেন্টেশনে।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।