বাংলা সিরিয়াল

এত বছরের অভিনয়ের ক্যারিয়ারে এই প্রথম দশভূজার চরিত্রে আবির্ভূত হবেন ঋতুপর্ণা! কিন্তু এত দেরি কেন? সোনামণি আর শুভশ্রী কে নিয়ে কি বললেন অভিনেত্রী? ট্রোলিং থেকে শুভশ্রী-সোনামণিকে নিয়ে জবাব ঋতুপর্ণার

হাতে গোনার মাত্র কয়েকটা দিন। তারপরেই মহালয়ার পুণ্য তিথি। পিতৃপক্ষের সমাপ্তি হয়ে দেবীপক্ষের সূচনা শুভক্ষণ শুরু হয় সেদিন থেকেই। ঐদিন ভোর চারটের সময় বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কন্ঠে চন্ডীপাঠের হাত ধরে শুরু হয় দেবীর আগমন। তারপরে প্রাইভেট চ্যানেলে সেই বিশিষ্ট শো। প্রত্যেকটি চ্যানেল নিজেদের পছন্দমত এক অভিনেত্রীকে বেছে নেন সিংহবাহিনী ত্রিনয়নী রূপে। এ বছরে নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম প্রাইভেট চ্যানেল কালার্স বাংলায় দেবী দশভূজার চরিত্রে অবতীর্ণ হবেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। এক সাক্ষাৎকারে উঠে এলো অভিনেত্রীর মনের কিছু কথা। চলুন দেখে নেওয়া যাক কি বললেন অভিনেত্রী।

পর্দায় প্রথমবার নিজেকে দুর্গার উপরে তুলে ধরবেন অভিনেত্রী। এ বিষয়ে অগ্নি থেকে প্রশ্ন করা হয়, “প্রথমবার টেলিভিশের দুর্গা হিসাবে দর্শক তোমাকে দেখবে, এতদিন সময় নিলেন কেন?” “হ্যাঁ, সময় তো একটু লাগলো! তবে ইংরাজিতে একটা কথা আছে না বেটার লেট দ্যান নেভার… সত্যি বলতে দর্শক আমাকে একদম ভিন্ন একটা অবতারে দেখবে। আমি এর আগে মঞ্চে বহুবার পারফর্ম করেছি দেবী শক্তিরূপে। তবে প্রথমবার ক্যামেরাবন্দি হয়েছে সবকিছু ছোটপর্দার জন্য। দুর্দান্ত একটা অভিজ্ঞতা। খুব যত্ন নিয়ে আমরা কাজটা করেছি।”

আমরা সকলেই জানি অভিনেত্রী ঋতুপর্ণার দেবী দুর্গার রূপে প্রমো আসার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাল রকম ট্রোল করা হয়েছিল তাকে। বিশেষত অভিনেত্রীর বয়স নিয়ে খুবই বাজেভাবে ট্রোল করা হয়। এই কথাটা একদমই সত্যি যে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ট্রলিং আজকাল একটা সহজ ব্যাপার হয়ে উঠেছে। এ বিষয়ে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়, “ট্রোলারা সবসময়ই তৈরি থাকেন বিদ্রুপ করবার জন্য, ‘দেবী দশমহাবিদ্যা’ও তার বাইরে নয়। সেই নিয়ে তোমার কী মত?” উত্তরে অভিনেত্রী বলেন, “যাদের ইচ্ছা তাঁরা ট্রোল করবে। আমি এই ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করতে চাই না”। এছাড়াও আকাশ আট ছাড়া বাংলা বিনোদন মাধ্যমের আরো দুটি চ্যানেল রয়েছে যেখানে অন্য দুই অভিনেত্রী দেবী দুর্গার চরিত্রে অভিনয় করছেন। সে বিষয়ে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, “অপর দুই চ্যানেলে শুভশ্রী-সোনামণি দুর্গারূপে হাজির হবে, সেই প্রোমো কি দেখেছো?” তার উত্তরে অভিনেত্রী বলেন, “না, আমার এখনও দেখবার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। তবে আমি নিশ্চিত শুভশ্রী আর সোনামণি দুজনেই দুর্দান্ত কাজ করেছে”।

এছাড়াও দশমহাবিদ্যা সম্পর্কে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়, “দেবী দশমহাবিদ্যা’য় কী চমক থাকছে?” তার উত্তরে অভিনেত্রী বলেন, “দেবী দশমহাবিদ্যায় থাকবে দেবী সতী এবং তাঁর দশ মহাবিদ্যা অবতারের কাহিনি। এই অনুষ্ঠানের অংশ হতে পেরে তাঁদের সবার গল্প নিয়ে আমি অনেককিছু জানতে পারলাম। পুরো টিম প্রচুর পরিশ্রম করেছে। কেশসজ্জা থেকে মেকআপ কিংবা কস্টিটিউম- সবাই নিজেদের মতো করে এই অনুষ্ঠানকে সফল করে তুলতে সাহায্য করেছে। কোরিওগ্রাফারারা প্রচুর পরিশ্রম করছে। আমার মেকআপ রুমে তো ২৫জন লোক থাকত! কেউ কপালে ত্রিনয়ণী আঁকছে, কেউ চুল সেট করছে! আমি চ্যানেল কর্তৃপক্ষের কাছে কৃতজ্ঞ যে এই বছর আমাকে দুর্গা হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে”।

এছাড়াও অভিনেত্রীকে একটি ব্যক্তিগত প্রশ্ন করা হয়েছে, “মেয়ে ঋষণা আর ছেলে অঙ্কণকে এই মহালয়া দেখাবেন? প্রোমো দেখে তাঁদের কী প্রতিক্রিয়া?” সে বিষয়ে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, “আজকের দিনের বাচ্চা তো ওরা, সব বিষয় নিয়েই ওদের অনেক মতামত। সবটা শুনেই চলতে হয়। আমার পরিবারে আমার মা সবচেয়ে বেশি উত্তেজিত আমাকে দেবী দুর্গা রূপে মহালয়ার ভোরে ছোট পর্দায় দেখতে। উনি আমার নাচ খুব পছন্দ করেন। আমার স্বামী (সঞ্জয়) উনিও এই ভিডিয়ো দেখতে চেয়েছেন। সেই সময় সঞ্জয় সিঙ্গাপুরেই থাকবে”।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।