বাংলা সিরিয়াল

মিঠাই দেখে সুস্থ হয়ে উঠছে বহু মানুষ, সাক্ষাৎকারে জানালেন অভিনেতা বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী

বর্তমানে বাংলা ধারাবাহিকের মধ্যে সবথেকে সেরা ধারাবাহিক মিঠাই ধারাবাহিক। গত সপ্তাহের টিআরপি তালিকায় তা আরো একবার প্রমাণ হয়ে গেছে। এই নিয়ে মোট ৫৬ সপ্তাহ মিঠাই ধারাবাহিক TRP তালিকায় প্রথম স্থান দখল করে রইল। আর বাংলা ধারাবাহিক জগতের এক অনন্য রেকর্ড গড়ে তুললো। মিঠাই ধারাবাহিক শুরু হবার সময় থেকেই ধারাবাহিক নিয়ে দারুন উত্তেজনা ছিল মানুষের মধ্যে। সেই উত্তেজনা আজও বজায় আছে। সোশ্যাল মিডিয়াতে মিঠাই কে নিয়ে অসংখ্য ফ্যান পেজ রয়েছে। আর সেখান থেকেই ধারাবাহিকির বিভিন্ন মুহূর্ত শেয়ার করা হয়। ধারাবাহিকের হাত ধরে জনপ্রিয়তা পেয়েছেন অভিনেত্রী সৌমিতৃষা কুন্ডু এবং অভিনেতা আদৃত রায়।

সম্প্রতি কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে মুখোমুখি হয়েছিল মিঠাই ধারাবাহিকের দাদাই এবং ঠাম্মি। অর্থাৎ অভিনেতা বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী এবং অভিনেত্রী স্বাগতা বসু। এখানে তারা দুজন জানার যে ধারাবাহিকের প্রত্যেকেই অফস্ক্রিন এবং অনস্ক্রিন সমানভাবে সম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা করে। তাই জন্যই ধারাবাহিকের এত সাফল্য। তিনি আরো জানান যে তারা প্রত্যেকেই প্রত্যেকের সঙ্গে বন্ধুর মতো মেশেন। এমনকি মাঝেমধ্যে শুটিং তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গেলে তারা সকলে মিলে একসঙ্গে কোন ক্যাফে তে আড্ডা দিতে যায়। এছাড়াও কলকাতার বিভিন্ন নামিদামি ক্লাবে তারা একসঙ্গে হই-হুল্লোড় করতে যায়। এই দিন সাক্ষাৎকারে বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী জানান যে মিঠাই ধারাবাহিক দেখে সুস্থ হয়ে উঠেছেন বহু রোগী।

বাবু জানান যে তার এক নিকটের বন্ধু যিনি হিন্দি ভাসি। কিন্তু বাংলা ধারাবাহিকের মিঠাই রোজ দেখেন তিনি। মিঠাই ধারাবাহিকের অনেক বড় ভক্ত তিনি। দীর্ঘদিন হলো তার সঙ্গে যোগাযোগ হচ্ছিল না বলে বিশ্বজিৎ বাবুর। তাই নিজেই তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে এবং যোগাযোগ করার পর জানতে পারে তিনি বহুদিন ধরে এক রোগে ভুগছেন এবং নিজের চিকিৎসা করাতে সুদূর মুম্বাইতে গিয়েছেন। কিন্তু মুম্বাইতে গিয়েও মিঠাই দেখতে ভুলছেন না। হাসপাতালে বসেই মিঠাই ধারাবাহিক দেখছেন ওই ব্যক্তি। আর এই কথা শোনার পরেই বিশ্বজিৎ ভীষণই খুশি তার পাশাপাশি মিঠাই ভক্তরা খুশি। একজন অভিনেতা হিসেবে বিশ্বজিৎ বাবুর কাছে এটা অনেক বড় প্রাপ্তি।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।