বাংলা সিরিয়াল

কান থেকে অঝরে পড়ছে রক্ত! “কেয়ারলেস মানুষ হলে যা হয় আর কি” – সকলের প্রিয় মিঠাই রানীর এই আঘাত কি করে লাগলো?

জি বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক মিঠাই। বর্তমানে এই ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বি। প্রচুর মানুষের ভালোবাসা ও আশীর্বাদ পেয়েছে মিঠাই টিম। তবে বর্তমানে সময়টা খারাপ যাচ্ছে মিঠাই টিমের। এর আগে অ্যাকশন সিগনের শুটিং করতে গিয়ে আঘাত পেয়েছেন ওমি আগারওয়াল ওরফে অভিনেতা জন ভট্টাচার্য। তার কিছুদিন পরেই আবার রক্তারক্তি কান্ড সৌমিতৃষার।

যদিও এমনিতেই সেটে এর আগেও বহুবার চোট পেয়েছেন অভিনেত্রী। হঠাৎ হঠাৎ পড়ে গিয়ে আঘাত পাওয়ার ট্রাক রেকর্ড আছে তার। এর আগেও একবার সেটাই পায়ে চোট পেয়েছিলেন। কিন্তু সে দিকে তাকা না করে শুটিংয়ের কাজ করে গিয়েছেন। আবারো একবার চোট লাগলো সেই মিঠাই রানীর। কার থেকে অঝরে রক্ত ঝরছে। এই ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন অভিনেত্রী। এই ছবি শেয়ার করে অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘কেয়ারলেস মানুষ হলে যা হল আর কি’। এই ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট হওয়া মাত্র দর্শকেরা ব্যাকুল তাদের প্রিয় মিঠাই রানীর জন্য।

মিঠাইয়ের এরূপ অবস্থার কারণ জানতে এক বিশিষ্ট সংবাদ মাধ্যম ফোন করে অভিনেত্রী সৌমিতৃষাকে। অভিনেত্রী বলেন, “আর বলো না, আমি ২ মাস আগে কান ফুটিয়ে ছিলাম। ওটা শুকোয়নি কোনওভাবে। ফোন ঘাঁটতে ঘাঁটতে কাল রাতে পুসটাকে খুলতে গিয়ে কানের দুলটা এক ঝটকায় খোলে, আর সঙ্গে সঙ্গে রক্ত পড়তে শুরু করে’।

শুধু এটুকু করেই ক্ষান্ত থাকেন না অভিনেত্রী। অভিনেত্রী জানান তাঁর মা রান্না ঘরে চলে যাওয়ার পরেই তিনি আবার তাঁর শখের কানের ফুটো বন্ধ না হয়ে যায় তাই ভেবে আবারো সোনার কানের দুল ঢোকানোর চেষ্টা করেন। আর তাতেই যত বাড়ে বিপত্তি। কানেক্টি এতই বাজেভাবে ঢুকে যে তাতে আরো সমস্যা বাড়ে। অভিনেত্রী বলেন, “উলটো টান দিচ্ছি খুলছে না। হয়ত শিরায় আটকে গিয়েছিল, এরপর ডাক্তারকেও ফোন করি। তৈরি হয়ে বার হতেও যাচ্ছিলাম। আর মনে মনে গোপালকে ডাকছিলাম, জন্মাষ্টমীর আগের দিন আমার সঙ্গে কী করছো! এর মাঝে হেঁটকা টান দিতে কানের খুলে যায়। তবে প্রচণ্ড রক্ত বার হচ্ছিল। রক্ত তো বন্ধই হচ্ছিল না। অনেকক্ষণ রক্ত চেপে রাখতে হয়েছিল”।

সংবাদ মাধ্যম থেকে তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয় সবার প্রিয় সৌমিতৃষা এখন কেমন আছেন? এ বিষয়ে অভিনেত্রী জানালেন, “কান ফুলে আছে, প্রচণ্ড ব্যাথা। আজ থেকে অ্যান্টি-বায়োটিক খাওয়া শুরু করব। ডাক্তার বলেছেন, ফুলে থাকার কারণে ওই চ্যানেল ছোট হয়ে গেছে, তাই এই হাল”। এত ব্যথা নিয়েও ভারত লক্ষ্মী স্টুডিওর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন অভিনেত্রী। অভিনেত্রীর অনুরাগীদের প্রার্থনায় শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠুন সৌমিতৃষা।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।