বাংলা সিরিয়াল

অপুর সংসারের সিন এবার মিঠাইয়ে! দীর্ঘ ৬৩ বছর পর সৌমিত্র – শর্মিলার ছায়া এবার আমাদের সিদ্ধার্থ – মিঠাই

আজকালকার ধারাবাহিকের মধ্যে বাংলার সব থেকে সেরা ধারাবাহিক হলো মিঠাই। দীর্ঘ ৫৬ সপ্তাহ তারাই বাংলার সেরা হয়েছে। তবে ধারাবাহিক এর প্রতি মানুষের এত ভালোবাসা কেনো তা ভেবে দেখেছেন কখনও? আসলে প্রতিদিনের জীবনের সাথে ওতপ্রোত মিল থাকায় মানুষ জড়িয়ে পরেন ধারাবাহিকের সাথে। যা যা ঘটে সাধারণের জীবনে তাই তুলে ধরার চেষ্টা করেন লেখক লেখিকারা ছোট পর্দায়। কিন্তু বেশিরভাগ ধারাবাহিক এই সম্পর্কগুলির মধ্যে বন্ধুত্ব, প্রেম, ভালোবাসা, স্নেহ, মায়া সবেতেই যেন কেমন ভেজাল। কিন্তু বাস্তবিক জীবনে এখনো নির্ভেজাল সম্পর্ক কিন্তু বিরাজমান। সেই কারণেই কিছু ধারাবাহিক আছে যাদের সম্পর্ক গুলিকে একেবারেই নির্ভেজাল রূপে ফুটিয়ে তোলা হয়। যার কারণে অন্তরঙ্গ মুহূর্ত ছাড়াও ধারাবাহিকের বাকি সিন গুলির জন্য জনপ্রিয় হয়ে ওঠে সেই ধারাবাহিক।

অতীতের বহু সিনেমা যাদের নাম আজও স্বর্ণাক্ষরে খচিত আছে সেইসব সিনেমায় কিন্তু অন্তরঙ্গ মুহূর্তের বদলে সম্পর্কগুলিকে নির্ভেজাল ভাবে দেখানো হয়েছিল। যেমন ১৯৫৯ সালে স্বনামধন্য পরিচালক সত্যজিৎ রায় অপুর সংসার সিনেমায় দেখিয়েছিলেন স্বামী স্ত্রীর সংসারের গল্প। সেখানে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কোন জায়গায়ই ছিল না। গরম ছিল তাদের দুজনের মধ্যে শুধু নির্ভেজাল ভালোবাসা, স্নেহ আর দায়িত্ববোধ। যা দিয়ে তারা সারাটা জীবন একসাথে কাটানোর স্বপ্ন দেখতো। কিন্তু আজকালকার ধারাবাহিকে সেসব প্রায় সম্ভবই নয়। প্রত্যেকটি ধারাবাহিক এই এমন কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্ত দেখানো হয়, যা সব সময় হয়তো পরিবারের সাথে বসে দেখা সম্ভব নয়।

কিন্তু ব্যতিক্রম তা তো সব জায়গাতেই থাকে। তেমনি ধারাবাহিক জগতে এক ব্যতিক্রম হলেও মিঠাই। মিঠাইয়ের লেখিকা শাশ্বতী ঘোষ, তার ধারাবাহিকের গল্প সাজিয়েছেন ঠিক সেই ভাবেই। যেখানে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে একটি পবিত্র ভালবাসা স্নেহ ও দায়িত্ববোধের সম্পর্ক। সত্যজিৎ রায়ের সিনেমায় যেমন দেখানো হয়েছিল স্ত্রী তার স্বামীকে খেতে বসে তাল পাখার পাখা দিয়ে হাওয়া করছে। ঠিক তেমনি মিঠাই তো দেখানো হল সিদ্ধার্থকে ঘুমানোর সময় তাল পাতার পক্ষ দিয়ে হাওয়া করছে মিঠাই।

এতগুলি দর্শক পরে দর্শক আবারো ফিরে ফেলো সেই পবিত্র ভালোবাসার দৃশ্য। আশ্বতি ঘোষ তার গল্পে ফুটিয়ে তুলেছে পবিত্র ভালোবাসা, স্নেহ, বাৎসল্য। যা দেখে দর্শক আজ আপ্লুত। সমাজ যতই এগিয়ে যাক এই ছোট ছোট ভালবাসার মুহূর্ত ভালোলাগাগুলি সজীব থাকবে আজীবন। তাইতো যে সব অন্তরঙ্গ দৃশ্য সো কল্ড রোমান্টিক দৃশ্য হিসেবে দেখানো হয় ধারাবাহীকে সে সবগুলি কেও ছাপিয়ে গেছে এই দৃশ্য গুলি।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।