বাংলা সিরিয়াল

‘নিন্দুকদের মুখে ঝামা ঘষে দিলো ধুলোকনা! লালনকে নিয়ে টানাটানি না করে তিতির পজেটিভ চরিত্র হয়ে লালন ফুলের মিল ঘটাতে অনুঘটক হয়ে উঠলো!’ধুলোকণা দেখে বলছেন নেটিজেনরা!

স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ধুলোকণা। এই ধারাবাহিকের সঙ্গে নেটিজেনদের এক অংশের মানুষ মিল খুঁজে পেয়েছিলেন ইচ্ছে নদী ধারাবাহিকের। কারণ লালনের সমুদ্রে ডুবে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার পর স্মৃতিভ্রষ্ট হয়ে সে যেমন এক ডাক্তারবাবুর বাড়িতে আশ্রয় নেয় ঠিক তেমনি ঘটনা ঘটেছিল বহু বছর আগে স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ইচ্ছেনদীতে। এই ধারাবাহিকের নায়ক অনুরাগ ও অ্যাক্সিডেন্টের পর স্মৃতি হারিয়ে একজনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

এখানেই শেষ নয় ইচ্ছেনদী ধারাবাহিকের নায়িকা অনুরাগের স্ত্রী মেঘলা এরপর গায়িকা থেকে একজন কাজের লোক হিসেবে সেই বাড়িতেই কাজ করতে যোগ দেয়, ঠিক এমনটাই হয়েছে ধুলোকণা ধারাবাহিকে ফুলঝুরির ক্ষেত্রেও। ফুলঝুরি একজন জনপ্রিয় গায়িকা থেকে রাতারাতি বাড়ির কাজের লোকে পরিণত হয়েছে এবং সে যে বাড়িতে লালন আছে সেই বাড়িতেই কাজ নিয়ে গেছে। এত দূর অবধি মিল দেখে দর্শকদের এক অংশের মানুষ ধরেই নিয়েছিলেন যে বাকিটাও ইচ্ছে নদী ধারাবাহিকের মতোই হবে। ডাক্তার বাবুর মেয়ে তিতির লালন কে ভালোবেসে ফেলবে এবং সে কিছুতেই ফুলঝুরি এবং লালনকে এক হতে দেবে না এমনটাই ধরে নিয়েছিলেন তারা। কিন্তু তেমনটা হচ্ছে না ধারাবাহিকে দেখানো হচ্ছে তিতির খল নয় বরং সে একটি পজেটিভ চরিত্র, লালনের স্মৃতি ফিরতে সে বরং সহায়তা করছে লালনকে-এই দৃশ্য দেখে একজন নেটিজন বলছেন,
“কিছু মানুষ বলেছিল তিতির এসে লালনকে নিয়ে টানাটানি করবে।কিন্তু পিসি তো সবার মুখে ঝামা ঘষে দিল!

তিতির আজকে তার বাবার থেকে জানতে পেরেছে লালন ফুলঝুরির স্বামী।কিন্তু এদিকে বিয়ে একদম ঘরের দুয়ারে।তখন তিতির তার বাবাকে বললো বাপি আমি তোমার সম্মান নষ্ট হতে দেব না।গোগলের স্মৃতি ফেরানোর জন্য আমি না হয় মিথ্যে কনে সেজে এই সেক্রিফাইস টা করবো।

তিতিরের মা এসব শুনে ন্যাকা কান্না শুরু করেছে যদিও তবে তিতির চরিত্রটা দারুণ।তিতিরকে ভিলেন ভেবেছিলাম।ইচ্ছে নদীতে তো টুয়া মেঘলার সাথে অনেক ভিলেনগিরি করেছিল।একবার তো মেঘলাকে পার্টিতে মদ খাইয়ে বাড়ি পাঠিয়েছিল।কি জঘন্য কান্ড ঘটেছিল সেদিন!অনুরাগের মা মেঘলাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়।তখন মেঘলা পুনরায় টুয়ার বাড়িতেই ফিরে আসে।

কিন্তু ধূলোকণায় তিতিরের কোন ভিলেনগিরিই চোখে পড়লো না।

বিয়ে খুব সামনে।আশা করছি লালফুলেরই বিয়ে হবে।কিন্তু ফুলের অতিরিক্ত অভিমান সবটা নষ্ট করে না দিলেই হল।লীনা গঙ্গোপাধ্যায় ভীষণ সাসপেন্স আর ভীতি রেখেছে কিন্তু!এমন ভাবে এপিসোড চালিয়েছে যেটা দেখে দর্শক ১০০% শিউরিটি দিতে পারছে না।”

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।