বাংলা সিরিয়াল

জলসা ফ্যানরা লুকিয়ে লুকিয়ে লক্ষ্মী কাকীমা সুপারস্টার দেখেন ট্রোল করবেন বলে! লক্ষ্মী কাকিমা সুপারস্টারকে নিয়ে ট্রোল করতে গিয়ে এক জলসা ফ্যান নিজেই বেকায়দায় পড়ে গেছে!

একটি ধারাবাহিকের যেমন ভক্ত ও হেটার থাকে তেমনি একটি চ্যানেলের ভক্ত এবং হেটার থাকে। স্বাভাবিকভাবেই যারা কোন ধারাবাহিকের হেটার হন তারা সেই ধারাবাহিকের কোন প্রশংসা সহ্য করতে পারেন না এবং সেই ধারাবাহিকের কোন ভালো জিনিসও দেখতে পারেন না। শুধু সেই ধারাবাহিক টিকে নিয়ে ট্রোল করেন। তেমনি যারা জি বাংলার হেটার তারা জি বাংলার কোন ধারাবাহিক দুচোখে সহ্য করতে পারেন না আর যারা স্টার জলসার হেটার তারা স্টার জলসার কোন ধারাবাহিক দেখতে পারেন না।

সম্প্রতি একজন জলসা ফ্যান জি বাংলার একটি ধারাবাহিককে নিয়ে ট্রোল করতে গিয়ে নিজেই ট্রোলিংয়ের শিকার হলেন। এতদিন ধরে যখন কোনো ভক্ত কোন ধারাবাহিক নিয়ে ট্রল করেছে তখন ভক্তরা বলতো কি করে আপনারা জানলেন নিশ্চয়ই আপনারা ওই ধারাবাহিকটি দেখেছেন? ট্রোলাররা তখন বলতো না আমরা ধারাবাহিকটি দেখিনি আমরা ছোট ছোট ক্লিপস দেখে বুঝতে পেরেছি। সম্প্রতি একজন জলসা ফ্যান লক্ষী কাকিমা সুপারস্টার নিয়ে ট্রোল করতে গিয়ে নিজেই ট্রোলিং হয়ে গেছেন।

একজন নেটিজেন‌ (জলসা ফ্যান) যেমন সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন,“
লক্ষ্মী কাকিমাতে বিশ্বকর্মা পূজা উপলক্ষে লক্ষ্মী কাকিমার দেওর এবং বড় ছেলে বাড়িতে মদ নিয়ে এসেছে

সেই নিয়ে দেবুদা রাগারাগি করলে লক্ষী কাকিমা সুপার কুল হয়ে ও বলে – ছেলেপিলেরা পুজোর দিনে এসব একটু করেই। এই শোন তোদের দলে আমাকেও নিতে পারিস তোরা চিলেকোঠার ঘরে গিয়ে লুকিয়ে খাস দরকার হলে পকোড়া সাপ্লাই করতে গেলে আমাকে আগে থেকে বলিস

খুবই শিক্ষণীয় ব্যাপার এরকম কাকিমাও হয়”একজন জি ভক্ত এই পোস্টটি দেখে শেয়ার করেন ও ক্যাপশনে লেখেন,“ ও মা গো এরা লক্ষী কাকিমা এতো ফলো করে”

এই প্রশ্নের উত্তরে আর একজন জি ফ্যান লেখেন,“ না দেখলে জানবে কি করে! আর জী এখনো ক্লিপস ও দেয়নি এখন কি বাহানা দেবে!”

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।