বাংলা সিরিয়াল

‘বিছানায় শোয়ার সাথে সাথে নাক ডাকার বিরল প্রতিভা সম্পন্ন জীব কে দেখে চোখ কপালে উঠল সিদ্ধার্থের!’-মিঠাইয়ের সিন নিয়ে আবার আগের মত হাসাহাসি শুরু সোশ্যাল মিডিয়ায়!

জি বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক মিঠাই। এই ধারাবাহিক এক সময় রাত্রে আটটার স্লটে কাঁপিয়ে বেড়াতো বর্তমানে সন্ধে ছটার স্লটে রীতিমতো রাজ করছে, সন্ধ্যে ছয়টার স্লটে গিয়ে এই ধারাবাহিকের গল্প অনেকটাই বদল হয়েছে। এই ধারাবাহিকে বর্তমানে দেখানো হচ্ছে যে মিঠাই মারা গিয়েছে এবং গল্প বেশ কয়েক বছর এগিয়ে গেছে! বড় হয়ে গেছে শাক্য ও। কিন্তু মিঠাই সিদ্ধার্থের এই ছেলেকে কেউই সামাল দিতে পারছে না তাই
সিদ্ধার্থ সিদ্ধান্ত নেয় যে একে বোর্ডিংয়ে পাঠিয়ে দেবে।

এরপর মোদক পরিবারে আসে নতুন টিউটর মিঠি। সে একেবারেই মিঠাই এর মতো দেখতে কিন্তু মিঠাইয়ের কোন গুণই তার মধ্যে নেই, তার বাবা তার বিয়ে ঠিক করেছে প্রান্তিকের সাথে এই বিয়ের থেকে বাঁচতে সে পালিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে, মিঠির বাবা মহেন্দ্র বিশ্বাস ইতিমধ্যেই খোঁজ পেয়ে মনোহরায় চলে এসেছে আর মনোহরার সকল সদস্যরা মিঠিকে সহায়তা করছেন।

মিঠিকে যাতে তার বাবা চিনতে না পারে তাই মিঠিকে মিঠাই সাজানো হচ্ছে, তাকে শাড়ি পরানো হচ্ছে, তাকে রান্না করানো শেখানো হচ্ছে। এমনকি তাকে গোপালকে পুজো করাতেও শেখাতে হচ্ছে। মিঠাই এর মতো দেখতে কিন্তু মিঠাইয়ের কোন গুণই তার মধ্যে নেই। সব দেখে আজব হয়ে যাচ্ছে সিদ্ধার্থ মিঠাই এর ছবি দেখে সে বলছে এরকম একটা জীব পৃথিবীতে এলো কি করে বলতো!

মিঠি মিঠাই কিনা এটা চেক করবার জন্য মিঠির বাবা মনোহরাতেই রয়ে গেছেন, তিনি আবার মিঠাই এর বাবার সাথে দেখা করতে চান তাই রাজিব মিঠাই এর বাবা সেজেছেন, এত সবের মধ্যে একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে যে মিঠি, বিছানায় শোয়ার সাথে সাথেই নাক‌ ডাকতে শুরু করেছে আর তাই দেখে রীতিমত চোখ কপালে উঠেছে সিডের! একজন নেটিজেন তাই দেখে মজা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন,
“বিছানায় শোয়ার সাথে সাথে নাক ডেকে ঘুমোনোর” বিরল প্রতিভাসম্পন্ন মানুষ প্রথমবার দেখলে চোখ কপালেই ওঠে!!!!
Black coffee খাওয়া মানুষদের এসব প্রতিভা থাকে না কিনা,
এসব প্রতিভা Nobita fan দের ই থাকে!!!”

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।