বাংলা সিরিয়াল

মোদক পরিবারে ফিরে এসে খুশির আমেজ, সিদ্ধার্থ বাড়ি ফেরায় জন্মাষ্টমীর উৎসব পালন করা হচ্ছে ধুমধাম করে

মোদক পরিবারের উপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে একের পর এক ঝড়। সদ্যই ওমি আগরওয়াল এর মৃত্যুতে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে গিয়েছিল সিদ্ধার্থ কে। কিন্তু সিদ্ধার্থ কে আদালতের নির্দেশ প্রমাণ করে বাড়িতে ফিরিয়ে এনেছে মিঠাই। তাই বাড়িতে এখন উৎসবের আমেজ। ধুমধাম করে মনোহরাতে পালন হচ্ছে জন্মাষ্টমীর উৎসব। কিন্তু গোপালের জন্মদিনে দিন সিদ্ধার্থের কাণ্ডকারখানা থেকে হেসে লুটোপুটি মোদক পরিবারের সকলের পাশাপাশি মিঠাই ভক্তরা। ‘এনজয় ইওরসেলফ’ ভুলে গোপালকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালো সিদ্ধার্থ। আর উচ্ছেবাবুর এই কান্ড কারখানা দেখে নিজেও হাসি চেপে রাখতে পারেনি মিঠাই।

কয়েকদিন আগেই মোদক পরিবারকে বোম ব্লাস্টের মাধ্যমে উড়িয়ে দিতে চেয়েছিল ওমি আগারওয়াল। কিন্তু তার পরিকল্পনা সফল হয়নি। তার আগে সেখানে পুলিশ পৌঁছে যায় এবং সিদ্ধার্থ নিজের বুদ্ধিতে বোম ডিফিউস করতে সফল হয়। কিন্তু পুলিশ ওমি কে ধরার সময় সিদ্ধার্থের সঙ্গে ধরতে সিদ্ধার্থের হাত থেকে গুলি লেগে মৃত্যু হয় ওমির। যার কারণে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। সিদ্ধার্থকে জেল থেকে ফিরিয়ে আনা একপ্রকার অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু মিঠাই হাল ছাড়েনি। সে নিজের গোপালের উপর ভরসা রেখেছিল। তাই গোপালকে নিয়েই আদালতে পৌঁছে যায় মিঠাই এবং সিদ্ধার্থ যে নির্দোষ তার সমস্ত প্রমাণ দেয় আদালতের কাছে।

আর বর্তমানে সব বিপদ কাটিয়ে উঠে আপাতত মোদক পরিবারে খুশির আমেজ ফিরে এসেছে। আবার হৈ হুল্লোড়ে মেতে উঠেছে গোটা পরিবারের সদস্যরা। গোপালের কাছে ননীর হাড়ি নিবেদন করতে হবে। কিন্তু তার আগে সেই ননীর হাড়ি খুঁজে বার করতে হবে। আর এই প্রতিযোগিতায় নামবে মোদক পরিবারের চার জুটি। সিদ্ধার্থ-মিঠাই, রাজীব-নন্দা, রাতুল-শ্রীতমা এবং রুদ্র-নীপা। কিন্তু এদিকে নিপা তো রুদ্রর উপর অভিমান করে রয়েছে। অবশেষে রুদ্র নীপার অভিমান ভাঙ্গায়। তাই আপাতত সব ভয়ের মেঘ কেটে গিয়েছে মনোহরের উপর থেকে। সকলেই আনন্দে মেতে উঠে যায় জন্মাষ্টমীর উৎসব পালন করছে।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।