বাংলা সিরিয়াল

মন ফাগুনের জায়গায় এসেছে মাধবীলতা, প্রথম এপিসোড কতটা পছন্দ করলো মানুষ? উত্তর দিল মন ফাগুনের দর্শক

আজকাল ধারাবাহিক বিনোদন মাধ্যমগুলির মধ্যে অন্যতম হয়ে উঠেছে। মানুষের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গিয়েছে প্রত্যেকদিন সম্প্রচারিত হওয়ায় ধারাবাহিক গুলি। সেই জন্যই কোন ধারাবাহিক মানুষের পছন্দ হলে তা দীর্ঘদিন চলে আবার কোন ধারাবাহিক মানুষ পছন্দ না করলে তা তড়িঘড়ি বন্ধ করে দেওয়া হয়। টিআরপি ও স্লট লিড করতে না পারলে তড়িঘড়ি বন্ধ করে দেওয়া হয় প্রচুর ধারাবাহিক। সম্প্রতি এমনই একটি ধারাবাহিককে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে স্টার জলসায়।

“মন ফাগুন” এর স্লটে আনা হয়েছে মাধবীলতাকে। কে এই মাধবীলতা? যদিও এর আভাস আমরা পেয়ে গিয়েছিলাম প্রমোতেই। অভিনেত্রী শ্রাবণী ভূঁইয়া আসতে চলেছে এমন একটি পাহাড়ি মেয়ে হয়ে যে যারা গাছ কাটছে তাদের বিরুদ্ধে লড়ছে। আমরা প্রায়শেই আশেপাশে গাছ কাটতে দেখতেই পাই। একবার দুবার প্রতিবাদ করলেও তা বেশিরভাগ মানুষেরই গা সওয়া হওয়া হয়ে গেছে। কিন্তু গাছ কাটার বিরুদ্ধে লড়বে আমাদের মাধবীলতা। একটি সামাজিক বার্তা নিয়ে এসেছে এই ধারাবাহিক।

প্রথমদিকে যে প্রমো এসেছিল সেখানেই দেখা মিলেছিল মাধবীলতা ও সবুজের। প্রথমেই দেখা গিয়েছিল একটি দা নিয়ে যারা গাছ কাটছে তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে মাধবীলতা। তার বাড়ি জঙ্গলহাটা। আবার সবুজ কি কাজ করে তা জানতে পেরে মাধবীলতা নিজের মন দিয়ে বসে তাকে। যদিও এ তো গেল প্রমোর কথা। কিন্তু ইতিমধ্যেই সম্প্রচারিত হয়ে গেছে এই ধারাবাহিকের প্রথম এপিসোড।

এই প্রথম এপিসোড দেখে মানুষের রিএকশন কেমন ছিল? ইতিমধ্যেই আমরা পেয়ে গেছি আমাদের মাঝে এক দর্শককে যিনি মূলত ছিলেন মন ফাগুনের দর্শক। যদিও অনেস্ট রিভিউ দিয়েছেন তিনি। বলেছেন তিনি নিজে যেহেতু ডুয়ার্সের তাই লোকেশনকে ঘিরে আলাদা করে কিছু বলার নেই। সমস্তটাই পাহাড় জঙ্গল ঝর্নাকে ঘিরে দৃশ্য। সিনেমাটোগ্রাফিও যথেষ্ট ভালো। প্রথমেই অ্যাকশন দৃশ্যের মাধ্যমে এন্ট্রি যথেষ্ট পছন্দ করেছে দর্শক। মোট কথা সব মিলিয়ে প্রথম এপিসোড ভালই লেগেছে দর্শকের।

কিন্তু আবার খানিকটা খামতির কথাও বলেছে দর্শক। প্রথম দৃশ্যে নবাগতা অভিনেত্রী শ্রাবনীর অভিনয় পছন্দ করেছেন দর্শক। তবে সুস্মিতকে নিয়ে এখনো দর্শক কনফিডেন্টলি কিছু বলেননি। কারণ তাদের মনে হয়েছে প্রথম দৃশ্যে তাঁকে ভালো লাগার মত তেমন আলাদা করে কিছুই ছিল না চরিত্রে। আবার মাধবীলতার এন্ট্রির একটু খামতিও ধরেছেন দর্শক। পাহাড়ি মেয়ের হিন্দি গানের মাধ্যমে এন্ট্রি ঠিক পছন্দ করেনি বাঙালি দর্শক মহল। তার জায়গায় যদি সেই পাহাড়ি অঞ্চলের কোন আঞ্চলিক গান দেওয়া হতো তাহলে বাঙালি দর্শকের কাছে তা অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠতো। মোটের উপর দিয়ে প্রথম এপিসোড খুব একটা খারাপ লাগেনি দর্শকের।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।