বাংলা সিরিয়াল

জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো “রান্নাঘর” এর সঞ্চালিকা সুদীপা চ্যাটার্জির সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট ঘিরে বিতর্ক, ডেলিভারি বয়দের নিয়ে এ ধরনের মন্তব্য কাম্য নয় সমাজের প্রথম শ্রেণীর মানুষদের কাছ থেকে! সোশ্যাল মিডিয়ায় কটাক্ষের ঝড়

ছোট পর্দার অন্যতম পরিচিত মুখ সুদীপা চ্যাটার্জী। অন্যতম জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো “রান্নাঘর” এর সঞ্চালিকা তিনি। বছরের পর বছর ধরে শো এর সঞ্চালনার দায়িত্ব রয়েছে তাঁর কাঁধে। শুধু তাই নয় তাঁর দায়িত্বে বেশ তড়তড় করে এগিয়ে চলেছে শো এর টিআরপি। তবে অভিনয় জগতে খুব একটা দেখতে পাওয়া যায় না তাঁকে। খেতে খাওয়াতে আর রান্না শেখাতে বড্ড ভালবাসেন তিনি। আর তাই তো রান্নাঘরের মতো রিয়েলিটি শো এর সঞ্চালিকা দায়িত্ব তিনি সামলাচ্ছেন এত বছর ধরে।

কিন্তু সম্প্রতি তিনি সোশ্যাল মিডিয়া একটি পোস্ট করেন। যাকে ঘিরে বেশ তোলপাড় শুরু হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। পোস্টে সুদিপা লিখেছিলেন, “আমি শুধু জানতে চাই – Swiggy’র একজন delivery boy’ও, ফোন না করে, কেন গন্তব্যে পৌঁছতে পারে না? আর, ফোন করে কেন বলেন – ‘আমি আসছি, আপনি গেটটা খুলুন?’ আমি কি দারোয়ান, যে গেট খুলবো?” সোশ্যাল মিডিয়া এ ধরনের পোস্ট দেখে খুবই ক্ষিপ্ত হন নেটিজেনদের একাংশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় আগুন উঠেছে দেখে সাথে সাথেই পোস্টটি ডিলিটও করে দেন সুদীপা।

সঞ্চালিকা এ ধরনের মন্তব্যে ক্ষিপ্ত হন টলি পাড়ারও বেশ কয়েকজন। এই পোস্ট শেয়ার করে অরিত্র লিখেছেন, “এই কারণে বাংলার মিডিয়া ও ফিল্মের শিল্পীরা দীর্ঘদিন আগেই দেশের মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা হারিয়েছেন, জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও সঞ্চালিকা যাকে লক্ষাধিক মানুষ ফলো করেন তার কাছ থেকে এই বক্তব্য একেবারে কাম্য ছিলোনা। তাও উনি পোস্টটা ডিলিট করেছেন তবে মাথায় রাখবেন পোস্ট সরিয়ে নিলেই মন থেকে অহংকারী মানসিকতা সরে যায়না, তাই যে কোনো কুরিয়ারের ছেলেমেয়েরা আসলে অশিক্ষিত ও আপনার ভৃত্য, এই ধরনের চিন্তা ছুড়ে ফেলে দিন। ওরা পরিষেবা ক্ষেত্রের কর্মী, বেতন আপনার থেকে ৮০ শতাংশ কম কিন্তু পরিশ্রম ও ঝুকি আপনার থেকে ২০০ শতাংশ বেশি, যে কোনো পেশার মানুষদের সম্মান রয়েছে, জনপ্রিয় বা সিনেমাওয়ালা মানেই সে মহামানব কেউ নয়, এইটা বোধ করি বুঝে নিতে হবে সবাইকে।”

এছাড়াও একজন জনৈক লেখেন, “ওনার আলটপকা এবং আত্মঅহংকারী মন্তব্যের নমুনা মাঝেমধ্যেই পাওয়া যায়”। আরেকজন লেখেন, “শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের কথা মনে পড়ে গেল, – তোমার চৈতন্য হোক”। এছাড়াও অনেকে বলেন, ” এত যখন প্রবলেম তখন উনি ওনার কল রিসিভ করার জন্য একজন আর গেট খোলার জন্য একজন মানুষকে রাখুন। তবে দুটো মানুষ দুটো কাজ করবে আর ওনার মাথাও আরাম পাবে”। এমনই আরো বহু কথা তো শিকার হতে হয় সঞ্চালিকাকে।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।