বাংলা সিরিয়াল

বাড়ির মেয়ের কাঁধে সংসারের সম্পূর্ণ দায়িত্ব! তাই সিনেমা করার স্বপ্ন থাকলেও সিনেমার জন্য বসে থাকতে পারবেন না অভিনেত্রী শ্বেতা, তাই আবারও ফিরছেন ধারাবাহিকের হাত ধরে

একটা সময় এমন ছিল যখন দারিদ্রতা আর অভাবে জর্জরিত ছিল পরিবার। বাবা-মাকে দীর্ঘদিন থাকতে হয়েছে এক কাপড়ে। দিনের পর দিন কাটাতে হয়েছে নুনু ভাত খেয়ে। আর এইসব অনাহারে দুর্দশা জীবন কাটাতে গিয়ে পুজোর সময় নতুন জামাও হতো না তাঁদের। তবে এখন সময়ের চলন বদলেছে। পরিবর্তন এসেছে পরিবারের আর্থিক কল্যাণের। এখন সেই মা বাবার দায়িত্ব তাঁদের মেয়ের। হয়তো এই জন্যেই বলা হয় কন্যা সন্তান লক্ষ্মী। এই কথাটাই আমাদের সকলকে বিশ্বাস করা উচিত যে কোন পরিবার যদি কন্যা সন্তান আর পুত্র সন্তানের মধ্যে কোন প্রকার বিভেদ না করে কন্যা সন্তানকে যথাযোগ্য সম্মান আর ভালোবাসা দিয়ে স্বাধীনতা দিয়ে বড় করে তাহলে সেই কন্যাও পরিবারের দায়িত্ব নিতে পারে। সেই কন্যা একদিন তাঁর পরিবারকে আগলে রাখতে পারে মা হয়ে। এই কথাটা বারবার প্রমাণ করেন প্রত্যেকটি মেয়ে।

আজ জন্মদিন এমনই একটি মেয়ের। অভিনেত্রী শ্বেতা ভট্টাচার্য। আজ জন্মদিন এই অভিনেত্রীর। বলাই বাহুল্য সম্পূর্ণ পরিবারের দায়িত্ব রয়েছে তাঁর কাঁধে। তাই জন্মদিনের দিনেও পরিবারের সঙ্গে এই কোয়ালিটি টাইম কাটিয়েছেন অভিনেত্রী। সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমকে অভিনেত্রী জানান তিনি আবার ধারাবাহিকে জগতে ফিরতে চলেছেন। তবে আমরা জানি ছোট পর্দার হাত ধরে অভিনেত্রী অভিনয় জগতে পদার্পণ করলেও বড় পর্দায় বর্তমান মহানায়ক দেবের সাথে অভিনয় করে ফেলেছেন। সম্প্রতি শেষ হয়েছে প্রজাপতি ছবির শুটিং। আর কয়েক দিনের মধ্যেই শুরু হতে চলেছে ছবির ডাবিংও। আর এরই মধ্যে অভিনেত্রী জানিয়েছেন তিনি ফিরছেন ধারাবাহিকের জগতেও।

ধারাবাহিক জগতে অভিনেত্রীকে শেষবারের জন্য দেখতে পাওয়া গেছে, যমুনা ঢাকি ধারাবাহীকে। এই ধারাবাহিকের পর জানা গিয়েছিল অভিনেত্রী আর ধারাবাহিকে কাজ করতে চান না। এবার তিনি ক্যারিয়ার গড়তে চান বড় পর্দায়। প্রজাপতি সিনেমাতে শুটিং করার পরই হয়তো মত বদল হয়েছে অভিনেত্রীর। কিন্তু এমন নয়, অভিনেত্রী নিজে জানিয়েছেন যে তিনি আবার ফিরতে চান ছোটপর্দায়। জানা গিয়েছে অভিনেত্রীর যেখান থেকে উত্থান অর্থাৎ স্নেহাশীষ চক্রবর্তী প্রযোজনায় কাজ করেই ছোট পর্দায় আবার ফিরছেন তিনি।

গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল অভিনেত্রী নাকি ধারাবাহিকের একই রকম কন্টেন্টে কাজ করতে করতে বিরক্ত হয়ে উঠেছেন। তিনি আর এই ধরনের কাজ করতে চাইছেন না। তিনি একেবারেই অকৃতজ্ঞ হয়ে উঠছেন টেলিভিশনের প্রতি। কিন্তু অভিনেত্রী রীতিমতো রেগে গিয়েই বলেন, “আমি অকৃতজ্ঞ নই”। অভিনেত্রী আরো বলেছেন যে তিনি স্নেহাশীষ দার কাছে কৃতজ্ঞ। তাই এই ধরনের কথা তিনি কখনো বলেননি। স্নেহাশীষের হাত ধরেই তার উত্থান তাই সে কখনোই বিষয়টি অগ্রাহ্য করতে পারবেন না। অভিনেত্রী জানিয়ে দেন তাঁর ওপর পুরো সংসারের দায়িত্ব রয়েছে। তাই তিনি কখনোই সিনেমার আশায় বসে থাকতে পারবেন না।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।