বাংলা সিরিয়াল

‘মঙ্গল গ্রহ থেকে এলি;য়ানরা এসে ধুলোকনাকে টপার বানায়নি! দর্শকরাই বানিয়েছেন, দর্শকদের রুচি নিয়ে প্রশ্ন তোলার আগে ভাবুন!’ স্টার জলসার ধুলোকনা ধারাবাহিক কেন বেঙ্গল টপার হলো তার উত্তরে সমালোচকদের ধুয়ে দিল এক ধুলোকণা ভক্ত!

স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ধুলোকণা। এই ধারাবাহিক সম্প্রতি বহুবারের বঙ্গ সেরা ধারাবাহিক মিঠাই কে হারিয়ে বেঙ্গল টপার হয়েছে। এই ধারাবাহিকের টিআরপি বেড়ে ওঠার কারণ অনেকগুলি তার মধ্যে একটি কারণ সাম্প্রতিককালের ট্রাক। হ্যাঁ সম্প্রতি লালন ফুল হানিমুনে গিয়ে লালন যখন নিখোঁজ হয়ে যায় তখন কেউ ভাবতে পারে নিজে এই ধারাবাহিকটি তার পরের সপ্তাহে বেঙ্গল টপার হবে। কিন্তু তাই হয়েছে। নায়ক নিখোঁজ এবং ধারাবাহিককে মৃত দেখানোর পর এমনকি ইন্টারেস্টিং দেখানো হয়েছিল এই ধারাবাহিকে, যার জন্য এক সপ্তাহের মধ্যেই এই ধারাবাহিকের মোড় ঘুরে গেল?

লালন কে নিখোঁজ দেখানোর পর এই ধারাবাহিকে দ্রুত কয়েকটি ট্র্যাক আনা হয়েছে এবং সেই সমস্ত ট্র্যাকগুলিই ভীষণ বাস্তবধর্মী। ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে যে চান্দ্রেয়ী ফুলের ক্ষতি করতে চেয়েছিল নিজের মেয়ে চড়ুইয়ের জন্য, শ্রীরূপা ব্ল্যাকমেলের চাপে পরে সেই চড়ুইকেই সে রেখে আসতে বাধ্য হয়েছে শ্রীরূপার কাছে, এটা জেনে যে চড়ুই শ্রীরূপাকে দিয়ে দেহ ব্যবসার কাজ করাবে। অন্যদিকে ফুলঝুরির অসাধারণ বাস্তবসম্মত অভিনয় এবং লালন হত্যাকান্ডে হাত থাকা চান্দ্রেয়ীর কথা শুনে ফেলার পর মুহূর্তের তৎপরতায় মোবাইলে প্রমাণসহ সবটা রেকর্ডিং করে নেওয়া, অন্যদিকে চড়ুইকে দেহ ব্যবসার কাজে নামলে শ্রীরূপার ছেলে তাকে উদ্ধার করে। সব মিলিয়ে জমজমাট ট্র্যাক হয়েছিল এই ধারাবাহিকে। তা সত্ত্বেও এই প্রশ্নটা বারবার ওঠে যে কেন বেঙ্গল টপার হলো এই ধারাবাহিক।

সম্প্রতি একজন দর্শক সোশ্যাল মিডিয়ায় তার উত্তর দিয়ে একটি দীর্ঘ পোস্ট করেছেন,
“একটা ধারাবাহিক বেঙ্গল টপার কেন হয়?

উত্তরটা আপনার কাছেই তবে হেটারগণ মানতে চান না।তারা মনে করেন শুধু তাদের শো গুলোই বছরের পর বছর টপার হোক।যোগ্যতা থাকে বলেই টপার হয়।এটা তো বাজারের আলু,পটল না কিনে আনলাম।মানুষের ভালো লাগার উপর কারো নিয়ন্ত্রণ নেই।

যে দর্শক বাকি শো গুলোকে টপার বানিয়েছে সেই তারাই ধূলোকণাকে একাধিক বার টপার বানিয়েছে।এমন তো না মঙ্গল গ্রহ থেকে এলিয়েনরা এসে দেখে গেছে।তাই কোন শো কে ছোট করতে গেলে সব শো কেই সেই কাতারে ফেলতে হবে।কারণ দর্শকের রুচি যদি আপনি মনে করেন ভাল না তাহলে তখনও ভালো ছিল না।

যে শো গুলো টপার হয় তাদের ভিতরে ভালো লাগার মত কিছু এলিমেন্ট থাকেই থাকে এটা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না।ধূলোকণা ভালো এপিসোড দিয়েই টপার হয়েছিল।দর্শক ট্র্যাকটা পছন্দ করেছে।

আর যাদের ট্র্যাক পছন্দ হয়নি তারা আশানুরূপ ফল করতে পারেনি।সিম্পল

আমি তো মনে করি ধূলোকণা টিমের শুরু থেকে করা হার্ডওয়ার্কিং এর ফল।যোগ্য সম্মান পেয়েছে।এত ভালো ভালো আর্টিস্ট,এত ভালো অভিনয়,এত ভালো প্রেজেন্টেশন বিফলে যায়নি।

দর্শক ঠিক রায় দিয়ে দিয়েছে।যে জিনিসটা মাস পিপল দেখছে সেটাকে আপনি চায়লেও খারাপ বলতে পারবেন না।আর নিজের রুচি নিজের কাছে রাখুন।নিজের রুচি নিয়ে অন্যের রুচি জাজ করা মানে অনধিকার চর্চা ছাড়া আর কিছুই না।”

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।