Stories

স্বামীর সঙ্গে কম্প্রোমাইজ করলে হয়তো আদর্শ বৌ হতে পারতাম, আক্ষেপ রচনা ব্যানার্জীর

বিকেল হোলেই বাড়ির মা ঠাকুমারা বসে পড়ে টিভির সামনে। রচনা ব্যানার্জি এখন আমাদের বাংলার প্রতিটি মা বোনের কাছে জনপ্রিয় অভিনেত্রী। বাংলার পাশাপাশি রচনা ব্যানার্জি উড়িষ্যতেও বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। বাংলা সিনেমা প্রেমীদের বহু হিট ছবি উপহার দিয়েছেন এই অভিনেত্রী। তবে এই অভিনেত্রী তার বিয়ের পরে অনেকদিন ক্যারিয়ার থেকে দূরে থাকেন। ছেলেকে বড় করার জন্য তিনি আত্মত্যাগ করেছেন। তবে দিদি নাম্বার ওয়ানের মঞ্চ আবার তাকে টিভির পর্দায় ফিরতে সাহায্য করেছে।

শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় (Saswata Chatterjee) সঞ্চালিত টক শো ‘অপুর সংসার’-এ এসেছিলেন রচনা। শ্বাশত তাকে প্রশ্ন করেন যে স্ত্রী হিসাবে রচনা নিজেকে কত নাম্বার দেবেন! রচনার চটজলদি উত্তর ছিল শূন্য। শাশ্বত পরের প্রশ্ন করেন যে কি করলে রচনা ব্যানার্জি একজন সুগৃহিনী হতে পারতেন? উত্তরে অভিনেত্রী বলেন যে স্বামীর সাথে যদি কম্প্রোমাইজ করতেন তবে তিনিও ভালো স্ত্রী হতে পারতেন। কিন্তু রচনার লক্ষ্য ছিল অন্য।

অভিনেত্রী আরো জানিয়েছেন যে অভিনয়ের সাথে যুক্ত মানুষদের উচিত সেম প্রফেশনালের মানুষের সাথে বিয়ে করা। তবেই হয়তো একে অপরের পেশার সমস্যা গুলি বুঝতে পারবে। যখন স্বামী স্ত্রীর পেশা একে অপরের আলাদা হবে তখন তাদের মধ্যে অশান্তির সূত্রপাত হবে। তার প্রভাব পড়বে সংসারে। শেষমেষ তার ফল হবে বিবাহ বিচ্ছেদ। তবে অভিনেত্রী এই বিষয়ে আক্ষেপ করেন না। এখনো তিনি সময় পেলেই মা ছেলেকে নিয়ে বেরিয়ে পড়েন বেড়াতে। অনেকদিন আগেই তার বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে গেছে।

শত ব্যস্ততার মাঝেও নিজের ছেলে প্রণীল কে সময় দিতে তিনি ভোলেন না। নানা ধরনের রেসিপি দেখে সেগুলি খাতায় লিখে রাখেন। সময় সুযোগ পেলেই সেগুলি প্রণীলকে বানিয়ে খাওয়ান। অভিনয়, সংসারের পাশাপাশি অভিনেত্রী শাড়ির ব্যবসাতেও বেশ সফলতা লাভ করেছেন। রচনা ব্যানার্জীর কাছ থেকে শাড়ি কিনতে চাইলে তার ফেসবুক পেজে চোখ রাখুন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।