Stories

“আমি যেকোনও চরিত্র খুব জাস্টিফাই করার চেষ্টা করি জানো তো, খলনায়িকা কিংবা নেগেটিভ ভাবে কোনওদিন সেই চরিত্রকে আমি দেখিনি” – অভিনয় নিয়ে অকপটে ত্রমিলা ভট্টাচার্য

ত্রমিলা ভট্টাচার্য, বর্তমানে ধারাবাহিক জগতে খলনায়িকা হিসেবে বেশ পরিচিত একটি নাম। তবে অভিনেত্রী এমন একজন যিনি প্রচুর ধারাবাহিকে কাজ করেছেন এমন নয়। এই ধারাবাহিক জগতে প্রচুর মানুষ আসেন যাঁরা অভিনয়ের জগতে ক্ষণিকের জন্য জনপ্রিয়তা পান। নিজেদের অভিনয় দক্ষতাতে জনপ্রিয়তা পেলেও পরবর্তীকালে তাঁরা হারিয়ে যান। কিন্তু এমন কিছু অভিনেতা-অভিনেত্রী থাকেন যারা নিজের অভিনয় দক্ষতার মধ্যে দিয়েই খুব কম কাজ করলেও মানুষের হৃদয়ে একটি দৃঢ় জায়গা বানিয়ে নিয়েছেন। এই ধরনের অভিনেতা অভিনেত্রীদের নামের লিস্ট করলে হয়তো সে তালিকা শেষ করা যাবে না। তেমনি একজন অভিনেত্রী হলেন ত্রমিলা ভট্টাচার্য। অভিনেত্রী অভিনয় জগত থেকে প্রায় সরে গেলেও মানুষ ভালোই মনে রেখেছেন তাঁকে।

এবার অভিনেত্রী মুখ খুললেন নিজের অভিনয় সম্পর্কে। এক বিশিষ্ট সংবাদ মাধ্যম থেকে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, “নেগেটিভ চরিত্রে খুব দেখা যায় তোমায়, এই নিয়ে কী বলবে?” অভিনেত্রী উত্তরে বলেন, “আমি যেকোনও চরিত্র খুব জাস্টিফাই করার চেষ্টা করি জানো তো। খলনায়িকা কিংবা নেগেটিভ ভাবে কোনওদিন সেই চরিত্রকে আমি দেখিনি। আমি সবসময় নিজেকে দিয়ে বিচার করি। একটা মানুষের চরিত্রেও ভাল খারাপ দুটো দিক থাকে। এখানেও তাই। আপাতদৃষ্টিতে সেটাকে নেগেটিভ মনে হলেও আদতে সেটা কিন্তু নয়”।

নেগেটিভ চরিত্র সম্পর্কে দর্শকদের বরাবরই উত্তেজনাবেশ ভালই। এ বিষয়ে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়, “দর্শকদের কী খুব ভিন্ন ধারণা থাকে যারা নেগেটিভ চরিত্র করেন তাদের প্রতি?” অভিনেত্রী জানান, “এটা একটা ধারণা থাকে সেটা বলতে পারো। যে যারা নেগেটিভ চরিত্রে কাজ করেন তারা পজিটিভ চরিত্রে অভিনয় করতে পারেন এই ধারণাটা এক্কেবারেই থাকে না। বিশেষ করে এইসময় আমি সেটা আরও বেশি করে দেখছি। একটা ট্যাবু হয়ে যায় যে, ও! এই ব্যক্তি অভিনয় করছেন তাঁর মানে এটা নেগেটিভ। খুব আগে থেকেই লোকজন বুঝতে পেরে যায় যে এটা হতে চলেছে”।

আমরা বরাবর এই অভিনেত্রী কে দেখে এসেছি নেগেটিভ চরিত্রে। আর সেটা দর্শক খুব ভালোভাবেই গ্রহণ করেছিলেন। এই বিষয়ে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, “নেগেটিভ চরিত্রে করতে গেলে প্রিপারেশন কী লাগে?” তাতে অভিনেত্রী জানান, “নেগেটিভ চরিত্র করতে গেলে প্রচুর ইমোশনাল ক্ল্যাশ হয়। শারীরিক মানসিক একটা চাপ পরে এটা বলতে পারো। অনেক কিছু মেলানো যায় না। প্রতিদিন মনের সঙ্গে একটা যুদ্ধ চলে। নিজের স্বত্বা থেকে বেরিয়ে যেতে হয়। তবে এখন আর আগের মত প্রিপেয়ার করি না। আমি আগে বোঝার চেষ্টা করি যে আমি যে চরিত্রে অভিনয় করছি সেটা আমি আসলে নিজে হলে কী করতাম, এই জাস্টিফিকেশন টা আমার প্রয়োজন হয়”।

প্রসঙ্গত অভিনেত্রী, “পটল কুমার গানওয়ালা” ধারাবাহিকের হাত ধরেই বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। এই ধারাবাহিকের চরিত্রের নামে তিনি আজও সমাদৃত। মূলত অভিনেত্রী ১৯৯৭ সালে তার অভিনয় জীবনে পদার্পণ করেন। তারপর থেকেই অভিনয়তেই নিজের ক্যারিয়ার গড়েছেন তিনি। “সীমারেখা” ধারাবাহিকের হাত ধরেই শুরু হয় তার অভিনয় ক্যারিয়ার। এরপরেও বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ধারাবাহিকে অভিনয় করেছিলেন তিনি। “প্রতীক্ষা”, “সোনার হরিণ”, “ময়ূরপঙ্খী”, “পটল কুমার গানওয়ালা”, “মোহর” এমনই অসংখ্য ধারাবাহিক রয়েছে অভিনেত্রীর ঝুলিতে।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।