Stories

পাঁচ বছরের মেয়েকে দেবী দুর্গা স্বপ্নাদেশ দিয়ে বলেছিলেন কীভাবে পুজো করতে হবে! সেই থেকে উর্মির বাড়িতে দুর্গাপুজোর শুরু! ২০০ বছরের প্রাচীন সেই দুর্গাপুজোর ইতিহাস চলুন জেনে নেওয়া যাক!

সামনেই দুর্গা পুজো। দুর্গা পুজোতে এক এক বাড়িতে এক এক রকম ভাবে মা দুর্গা পূজিত হবেন। দুর্গাপুজো মানেই বাঙালিদের কাছে তা বিশেষ। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সকলেই এই পুজোয় হৈ হুল্লোড় করেন আর তারকাদের তো কথাই আলাদা। ‘এই পথ যদি না শেষ হয়’ ধারাবাহিকের অভিনেত্রী অন্বেষা হাজরা কেমন কাটান পুজোর পাঁচটা দিন?

এই নিয়ে একটি সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী বলেন,“ প্রত্যেকটা বছর আমি আমার বাড়ি মেমোরিতে চলে যায়। আমাদের বাড়ির নিজস্ব পুজো। তবে মেমোরির বাড়িতে পুজো হয় না। পুজো হয় গ্রামের বাড়িতে। মেমোরি থেকে আর একটু ভেতরের দিকে ধানখেরু গ্রাম।”

অভিনেত্রী আরো বলেন যে, একসময় ধানখেরু গ্রামে তাদের জমিদারি ছিল, সেই বাড়িতে ২০০ বছরের‌ও পুরনো পুজো আছে তাদের। অভিনেত্রীর দাদুর বড়পিসি স্বপ্নে এই পুজোর নির্দেশ পেয়ে ছিলেন। স্বপ্নে দেবী দুর্গা তাকে দেখা দিয়ে বলেছিলেন পুজোর কথা। অভিনেত্রীর কথা অনুযায়ী তখন অভিনেত্রীর দাদুর বড় পিসির বয়স মাত্র পাঁচ বছর। ঘুম থেকে উঠেই বছর পাঁচেকের ওই মেয়ে গর গর করে পুজোর সব নিয়ম বলে দিয়ে ছিলো। কীভাবে দুর্গাপূজো করতে হবে? পুজোর জোগাড় কী কী লাগবে সব বলে দিয়েছিল সে এমন কি কোথায় ঠাকুর স্থাপন করা হবে তাও সে বলে দিয়েছিলো। এরপর থেকেই বাড়িতে পুজোর চল শুরু হয়ে যায়।

অভিনেত্রী বাড়িতে পুজোর সময় বিশেষ ভোগ দেওয়া হয় লুচি আর অষ্টমীর দিন সারা গ্রামকে লুচির ভোগ খাওয়ানো হয়। অষ্টমী ছাড়া পুজোর পাঁচ দিন সারা গ্রামের লোককেই চার বেলা খাওয়ানো হয়। পুজোর সময় আর সকলের সাথে খাবার পরিবেশন এর দায়িত্বে থাকেন অভিনেত্রী নিজেও।

পুজোর দিনগুলো কীভাবে কাটান এই প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে অভিনেত্রী বলেন, “পুজোর প্রতিটা বছর বাড়িতেই থাকি। কোনো বছরই পুজোতে বন্ধুদের সঙ্গে কোনো প্ল্যান থাকে না। বাড়িতেই আমার সব ভাই বোনেরা আসে, পিসিরা আসে, যারা বিদেশে থাকেন তারাও সবাই আসেন। খুব মজা হইহুল্লোড় হয়।”

আর পুজোর কেনাকাটা কেমন হয়? অভিনেত্রী জানান, “সারা বছর ধরে কিছু না কিছু কিনতেই থাকি, তা থেকেই হয়ে যায় পুজোর শপিং। পুজোয়শাড়ি, সালোয়ার, আনারকলি, লং স্কার্ট এইসবই পরে থাকি।”

বাড়ির সাধারণ মেয়ে থেকে এখন তিনি তারকা! কোন কি বদল এসেছে? এই প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করলে অভিনেত্রী বলেন,“ একদমই না , আমার তো কোনো বদল চোখে পড়েনি। আগেও যেমন আছি এখনও তাই আছি। আগেও যেমন বাড়িতে থাকতাম এখনও থাকি তবে শুট থাকলে অবশ্যই করব, দুর্গাপুজোয় আমার সেরকম কোনো ব্যস্ততা থাকে না, বাড়িতেই থাকি বাড়ির পুজোয়, দশমীর দিন ঠাকুর বিসর্জনের পর একটু বাড়ি থেকে বের হই।”

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।