রাজ্য

ই-সাইকেল বানিয়ে সকলের নজর কেড়েছেন নদীয়ার যুবক, একবার চার্জ দিলেই ৭০ কিমি যাওয়া যাবে অনায়াসেই

বর্তমান পরিস্থিতিতে এই মূল্যবৃদ্ধির বাজারে অনেকেই কাজ হারিয়েছেন। দাম বেড়েছে বিভিন্ন ধরনের দ্রব্যের। সুস্থভাবে জীবনযাপন করা মাথায় উঠেছে সাধারণের। অন্যদিকে পেট্রোপণ্যের দামও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এমন পরিস্থিতি রীতিমতো ভাবিয়ে তুলেছিল নদীয়ার যুবক শুভময়কে। আর সেই ভাবনা থেকেই সাধারণ মানুষের জন্য ই-সাইকেল তৈরি করেছেন তিনি।

নদীয়ার বগুলা গ্রামের বাসিন্দা শুভময় বিশ্বাস। বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে নিজের প্রযুক্তিগত বুদ্ধিকে কাজে লাগিয়ে বানিয়ে ফেলেছেন ই-সাইকেল। যার নাম দিয়েছেন, সুপার ক্রাফড সোলার ইলেকট্রিক বাইক।

এই ই-সাইকেলের বিশেষত্ব:
• এই সাইকেল সৌরশক্তি চালিত।
• একবার চার্জ দিয়ে নিলেই চলে যাওয়া যাবে ৭০ কিলোমিটার পথ।
• উন্নত ধরনের লিথিয়াম সেল দিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই সাইকেলটি।
• মোটা সুপার ক্রাফড টায়ার ব্যবহার করা হয়েছে, যা রাস্তার উপর সাইকেলটিকে ধরে রাখবে।
• ফ্রন্ট অ্যাক্সিলারেশন সিস্টেমের মাধ্যমে ৭ টি গিয়ার রয়েছে এই ই-সাইকেলে। যার ফলস্বরূপ প্রতি ঘন্টায় ৪৫ কিলোমিটার বেগে চালানো যাবে এই সাইকেলটি।
• ডিজিটাল ও স্পিড এই দুই ধরনের মিটারই রয়েছে এই সাইকেলে।
• সাইকেলের পিছনে রয়েছে ব্লু টুথ ব্যাক লাইট যেটি সাইকেলকে লেজার দিয়ে দিক নির্দেশ করতে পারবে।
• রানিং লাইটের সাথে রয়েছে মজবুত হেডলাইটও।
• এই সাইকেলে চালক গতিবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন নিজেই।

২০২২’এ আচার্য্য সত্যেন্দ্রনাথ বসু স্মারক স্মৃতি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা সাইকেল নিয়ে হাজির ছিলেন নদীয়ার যুবক শুভময় বিশ্বাস। শুভময়ের বিশ্বাস এই ই-সাইকেল ভবিষ্যতে অনেকেরই কাজে লাগবে। তার স্বপ্ন তিনি নদীয়াতে একটি ই-সাইকেল হাব বানাবেন। যা তৈরি হলে অনেকের কর্মসংস্থান হবে। পাশাপাশি এই হাব সহায়ক হয়ে উঠবে সাধারণেরও। তিনি রীতিমতো আশাবাদী ভবিষ্যতে তার এই প্রযুক্তি স্বীকৃতি পাবে। ইতিমধ্যেই শুভময় পেটেন্টের আবেদনও করেছেন। তার চেনা পরিচিত বেশ কয়েকজন তার বানানো এই সাইকেলে চেপেছেন এবং তারা যে বেশ সন্তুষ্ট তা জানা গিয়েছে। ভবিষ্যতে শুভময় নিজের এই স্বপ্ন যাতে পূরণ করতে পারেন, তার জন্য শুভকামনা রইল।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।